জিতু সাওতাঁল কে ছিলেন? জিতু সাওতাঁল স্মরণীয় কেন?


who-is-jitu-santhal-and-why-jitu-santhal-is-famous


NBU 1st Semester-MDC History Of North Bengal যাদের আছে, তারা হয়তো জানো যে তোমাদের সিলেবাসে উওরবঙ্গের সাওতাঁল বিদ্রোহ রয়েছে এবং সেখানে তোমাদের জিতু সাওতাঁল সম্পর্কে পড়তে হবে। আজকের এই পোস্টে আমরা উওরবঙ্গের সাওতাঁল বিদ্রোহের নেতা জিতু সাওতাঁল (জিতু হেমব্রম) সম্পর্কে একটা নোট শেয়ার করবো।। তোমাদের এই প্রশ্নটা এভাবেও আসতে পারে যে- জিতু সাওতাঁল কে ছিলেন? জিতু সাওতাঁল স্মরণীয় কেন বা জিতু সাওতাঁল সম্পর্কে আলোচনা করো


জিতু সাওতাঁল কে ছিলেন? জিতু সাওতাঁল স্মরণীয় কেন? || উওরবঙ্গের সাওতাঁল বিদ্রোহে জিতু সাওতাঁলের ভূমিকা আলোচনা

উওর : তিতুমীর যেমন বারাসাতের নারকেলবেরিয়া বাঁশের কেল্লা তৈরি করে, স্থানীয় জমিদার এবং ইংরেজদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করেছিলেন, ঠিক সেরকমই উত্তরবঙ্গের মালদা জেলায়, তিতুমীরের মতোই স্থানীয় মুসলিম জমিদার, ইংরেজদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করেছিলেন জিতু সাঁওতাল (জিতু হেমব্রম) তার সাঁওতাল অনুগামীদের নিয়ে।

জিতু হেমব্রম ১৯৩২ খ্রিষ্টাব্দে তার অনুগামী প্রায় ৬০০ সাওতালদের নিয়ে মালদার আদিনা মজদিন দখন করেন এবং স্থানীয় মুসলিম জমিদার এবং ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করেন। জিতু সাঁওতাল মূলত 'সাঁওতাল রাজ' প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলেন এবং এর মাধ্যমে, মুসলিম জমিদারগণ সাঁওতালদের উপর যে জুলুম এবং শোষণ চালাতো তা বন্ধ করতে চেয়েছিলেন। 

NBU 1st Sem MDC-History Of North Bengal Full Syllabus-এর সব প্রশ্নের পিডিএফ নোট পেতে আজই কল করো- 8388986727 নম্বরে।

উওরবঙ্গের সাওতাঁল বিদ্রোহের কারণ ; 

সাওতাঁলদের নিয়ে জিতু সাওতাঁলের বিদ্রোহ করার পিছনে একাধিক কারণ ছিল। জিতু সর্দার বা জিতু সাওতাঁল চেয়েছিলেন-

১) খ্রিষ্টান পাদরীরা সাঁওতালদের জোরপূর্বক ধর্মান্তরিত করে সাঁওতালদের মধ্যে যে ঐক্য ভঙ্গ করছে, সেটা বন্ধ হোক।

২) মুসলিম জমিদাররা সাঁওতালদের উপর যে শোষণ চালাচ্ছে,সেটা বন্ধ হোক এবং সাঁওতালদের জমির ফসল সাঁওতাদের ঘরের মধ্যেই থাকুক। 

৩) এবং সবশেষে সিধু কানুর 'স্বাধীন সাওতাঁল রাজ' প্রতিষ্ঠা হোক। 

▪ উওরবঙ্গের সাওতাঁল বিদ্রোহের ফলাফল বা জিতু সাওতাঁলের পরিণতি ;

এই কয়েকটি উদ্দেশ্য নিয়ে জিতু সাঁওতাল তার প্রায় ৬০০ অনুগামী নিয়ে ১৯৩২ খ্রিস্টাব্দে আদিনা মসজিদ দখল করেন। সেখানে স্থানীয় মুসলিম জমিদারদের সঙ্গে সাঁওতালদের তীর ধনুকের যুদ্ধবাধে। সবশেষে সেখানে পুলিশ,ম্যাজিস্ট্রেট সকলেই হাজির হয়। জিতুর সঙ্গে বাকি বিদ্রোহী সাওতাঁলদের আপসের মিথ্যা প্রলোভন দেখিয়ে জিতু সহ বাকিদের আদিনা মসজিদের বাইরে আনা হয়। কিন্তু বাইরে আসার পরেই কোতোয়ালির জমিদার আবুল হোসেন চৌধুরীর গুলিতে জিতুর সাওতাঁলের মৃত্যু ঘটে। এবং এর সাথেই জিতু সহ সমগ্র সাওতাল সমাজের স্বপ্নভঙ্গ হয়।। জিতু সাওতাঁলকে গুলি করা ছাড়াও প্রচুর সাধারণ সাওতাঁলদের গ্রেফতার করার মধ্যে দিয়ে উওরবঙ্গের সাওতাঁল বিদ্রোহ শেষ করা হয়। 

তবে, উওরবঙ্গের সাওতাঁল বিদ্রোহ শেষ হলেও জিতু সাওতাঁল যে স্বাধীন সাওতাঁল রাজ প্রতিষ্ঠা করার জন্য লড়াই করেছিল, সেই বীরত্বের কথা সত্যিই ইতিহাসে স্থান পাওয়ার যোগ্য। 

এটা পড়ে দেখো👉 : পঞ্চানন বর্মা কে ছিলেন? পঞ্চানন বর্মার কৃতিত্ত্ব আলোচনা করো

এটাও পড়তে পারো👉 ; কোচ রাজবংশের ইতিহাস ( রাজবংশের শুরু থেকে মহারাজা নরনারায়ণের ইতিহাস পযর্ন্ত)

এটা পড়ে রাখো👉 ; রাজা গণেশ কে ছিলেন? রাজা গণেশের সম্পূর্ণ ইতিহাস

Tags : NBU 1st Sem MDC History Of North Bengal Note | 1st Sem MDC History Of North Bengal Question Answer | MDC History Of North Bengal প্রশ্ন উওর সেমেস্টার 1 | 1st History Of North Bengal MDC Note